মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার সহজ ৩০ টি উপায় জানুন | Rahul IT BD

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার সহজ ৩০ টি উপায় জানুন

প্রিয় পাঠক আজকের এই আর্টিকেলটি মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় এবং মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করার উপায় পাশাপাশি কিভাবে মোবাইল দিয়ে ঘরে বসে আয় করা যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।
মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
আপনারা যারা এ সম্পর্কে জানতে আগ্রহী আছেন তাদেরকে আজকেরে আর্টিকেলে স্বাগতম।

ভূমিকা

প্রিয় বন্ধুগণ আপনারা অনেকেই মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করতে চান অনলাইনের মাধ্যমে কিন্তু অনেকেই কিভাবে অনলাইনে এর মাধ্যমে কাজ করে টাকা ইনকাম করা যায় সে সম্পর্কে অবগত নন। তাই এ সম্পর্কে জানতে আপনার অনেকে ইন্টারনেটে সার্চ করে থাকেন। 

তাই আপনাদের প্রয়োজনে আজকের এই আর্টিকেলটি লেখা এবং এই আর্টিকেলটি অনেক বেশি ইনফরমেটিভ হবে। সুতরাং মনোযোগ দিয়ে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়তে থাকেন। আশা করি আপনারা উপকৃত হবেন।

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার সহজ ৩০ টি উপায় জানুন

বর্তমান সময়ে মোবাইল ব্যবহার করে না এমন মানুষ নেই বললেই চলে। মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করাকে বুঝি অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম। মোবাইল দিয়ে টাকা উপার্জন করার প্রক্রিয়াটি একটু সময় সাপেক্ষ। 

একটু ধৈর্য ধরে থাকলে এবং কঠোর পরিশ্রম করলে একটা সময়ে মোবাইল দিয়ে প্রচুর টাকা উপার্জন করা সম্ভব। মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার একাধিক উপায় রয়েছে। এর জন্য শুধুমাত্র একটি স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেট কানেকশন থাকে তাহলে আপনি মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম শুরু করতে পারেন। 

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার অনেক উপায় রয়েছে উপায় সমূহ নিম্নরূপ:
  • ফেসবুক বুষ্টিং করে মোবাইল দিয়ে তাকে ইনকাম
  • পুরাতন পণ্য বিক্রি করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ফেসবুক ই-কমার্স দ্বারা মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ফেসবুক মনিটাইজেশন দ্বারা মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ইউটিউব ভিডিও তৈরি করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ব্লগিং করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • পিটিসি সাইট থেকে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ফটো বিক্রি করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ফ্রিল্যান্সিং করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • মাইক্রো ওয়ার্ক সাইট থেকে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ইনভেস্টমেন্ট বাট ট্রেডিং সাইড থেকে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ড্রাইভিং করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • মোবাইল দিয়ে বিকাশ থেকে ইনকাম
  • ডেলিভারি সার্ভিসের মাধ্যমে মোবাইল দিয়ে টাকা আয়
  • কৃপটোকারেন্সি ট্রেডিং এর মাধ্যমে মোবাইল দিয়ে টাকা আয়
  • বিভিন্ন apps থেকে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • রিসেলিং ব্যবসা করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ওয়েব টক থেকে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • অনলাইন টিউশন করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • ইউটিউব ভিডিও তৈরি করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • গ্রাফিক ডিজাইন করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম
  • লুডু খেলে মোবাইল দিয়ে টাকা আয়
  • বিভিন্ন অপশনে ক্লিক করে টাকা ইনকাম
  • ভিডিও দেখে টাকা ইনকাম
  • গেম খেলে টাকা ইনকাম
  • শেয়ার করে টাকা ইনকাম

প্রতিদিন ১০০০ টাকা অনলাইন এ ইনকাম করুন মোবাইল দিয়ে জেনে নিন 

ঘরে বসে যদি ইনকাম করা সম্ভব তাহলে বাহিরে যাওয়ার প্রয়োজন তো নেই। আপনি যেভাবে ইনকাম করুন না কেন তা বৈধ এবং হালাল হতে হবে। টাকা আয় করা বর্তমানে তেমন কোনো কঠিন কাজ নয়। অবশ্যই চেষ্টা করতে হবে স্মার্ট উপায় এ টাকা ইনকাম করার। 

প্রয়োজন একটি সঠিক গাইডলাইন এবং পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা। তাহলেই অনলাইনের মাধ্যমে একটি ভালো পরিবারের আয় করা সম্ভব। প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করার অনেক পদ্ধতি রয়েছে তার মধ্যে অনলাইনে ইনকাম করার পদ্ধতিটা সবচাইতে বেশি জনপ্রিয়। 

তবে প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করার জন্য কিছু টিপস ফলো করতে হয় যেগুলো হল-

* বর্তমান যুগ ডিজিটাল যুগ। ডিজিটাল যুগে মানুষ ইতিমধ্যেই ডিজিটালাইজড। পণ্য এখন বাড়িতে বসে কেনা সম্ভব। তাই ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারলে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। ডিজিটাল ভাবে করা কাজ হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং। 

এটি একটি কঠিন এবং সময় সাপেক্ষ বিষয় নয় এখন অনলাইনে সহজে পণ্য মানুষের কাছে পৌঁছায় দেওয়া সম্ভব। ওয়েবসাইট তৈরি করে, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করে, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, ইমেইল মার্কেটিং, অনলাইন ব্যবসা স্থাপন, ইত্যাদি উপায়ে প্রতিদিন ১০০০ টাকা অনলাইন থেকে ইনকাম করা সম্ভব।

* অনলাইনে কোর্স বিক্রি করে প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করা সম্ভব। একটু টপিক নির্ধারণ করার পর আপনি আপনার কোর্স তৈরি করা শুরু করবেন। এটি ভিডিও কোর্স, ই-বুক, পিডিএফ, ওয়েবিনার অথবা যে কোন ফরমেটে হতে পারে। এটি আপনার অভিজ্ঞতা এবং আপনার লক্ষ্যের উপর কিছুটা নির্ভর করবে।

* ফেসবুকে অনলাইন শপ দেওয়ার মাধ্যমে ইনকাম করতে পারেন এবং সফল একটি ব্যবসা স্থাপন করতে পারেন। পণ্য বা সেবা নির্ধারণ করুন, আপনি ফেসবুক সাপের মাধ্যমে আপনার পণ্য বা সেবা বিক্রি করতে পারবেন। 

আপনি ফেসবুকে একটি পেজের মাধ্যমে কাজটি করবেন এবং তাতে আপনার পণ্যের ছবি বর্ণনা মূল্য আপনার যোগাযোগের তথ্য সহ সকল তথ্য সাজানো গোছানো রাখবেন যাতে তা ক্রেতাকে আকৃষ্ট করে। আপনি ফেসবুকে এডভারটাইজিং করে আপনার অনলাইন শপ পণ্য প্রচার করতে পারেন। 

ফেসবুক পেজে পোস্ট করে এবং আপনার পোস্টগুলো স্পন্সর করে এবং আরো বিভিন্ন উপায় ফেসবুক মার্কেটিং করতে পারেন। আপনি আপনার সব এবং পণ্যের গুণগত পর্যালোচনা এবং গ্রাহককে সঠিক সেবা প্রদান করবেন। পদক্ষেপ নিতে হবে এবং প্রতি গ্রাহকের জন্য আপনার সেবা সাপোর্ট সিস্টেম চালু করতে হবে। 

এই উপায়ে আপনি ফেসবুক সাপের মাধ্যমে একটি সফল অনলাইন ব্যবসা চালাতে পারবেন এবং প্রতিদিন ১ ০০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

* ফ্রিল্যান্সিং এক ধরনের ব্যবসা যেখানে আপনি স্বাধীন কর্মচারী হিসেবে কাজ করে ইনকাম বা উপার্জন করতে পারবেন। এটি বেশিরভাগ মানুষের জন্য উপযুক্ত যেহেতু এটি যে কোন স্থানে থেকে এবং যেকোনো সময় করা যায়। 

আপনি upwork, freelance.com ইত্যাদি জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্মে কাজ করার মাধ্যমে অনলাইনে ইনকাম শুরু করতে পারেন। ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য ধরতে হবে এবং কাজ করে যেতে হবে তাহলে সফল হওয়া যাবে। এটা একটু সময় সাপেক্ষ বিষয়। 

একটি নির্দিষ্ট স্কিলে নিজেকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে, কমিউনিকেশন স্কিল ডেভেলপমেন্ট করতে হবে। একটি নির্দিষ্ট ক্যাটাগরি বা স্কিল আয়ত্ত করতে হবে যেমন ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, স্ক্রিপ্ট লেখা ইত্যাদি এভাবে আপনি স্বচ্ছতা বজায় রেখে কাজ করতে পারবেন। 

ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে কমিউনিকেশন স্কেল কে একটু অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসাবে ধরে রাখতে হবে।

* ভিডিও বানিয়ে ইনকাম ইউটিউব এ কাজ করে অনেক লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করেছে এবং চাইলে প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করতে পারা সম্ভব্ এর জন্য ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা, পরিকল্পনা করে ভিডিও বানানো, ভিডিও, পৌঁছে দেওয়া এ সকল বিষয় নজর রাখতে হবে।

* ব্লগিং করে ইনকাম একটা মুক্ত পেশা যার মাধ্যমে অনেকে সফলতা অর্জন করেছে। এটি কম খরচে শুরু করা যায় এবং এখানে তেমন বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়ে না। এ পেশার মাধ্যমে আপনি দৈনিক ১০০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

এজন্য একটু ব্লক তৈরি করুন, উচ্চ গুণমানের কন্টেন্ট লিখুন, সময় মেইনটেন করুন, ব্লগ মনিটাইজেশন করুন, এসইও অপটিমাইজেশন খেয়াল করুন, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, প্রোডাক্ট বা সেবা বিক্রি করুন।

* অনলাইনে ছোট ছোট কাজ করে ও ইনকাম করা সম্ভব। যেমন অনলাইন শিক্ষাদান, এফিলিয়েট মার্কেটিং, ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম, ওয়েবসাইট টেস্টিং ইত্যাদি মাধ্যমে প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

* ভিডিও এডিটিং করে ইনকাম। এটি আপনার দক্ষতা, আপনার সময় এবং আপনার কোয়ালিটির উপর নির্ভর করতে পারে। ইউটিউব চ্যানেল সাজান, ভ্রমণের ভিডিও এডিটিং, স্বতন্ত্র ভিডিও এডিটিং কোর্স ইত্যাদি করার মাধ্যমে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ টাকা ইনকাম করে থাকে।

* ছাত্র পড়িয়ে অনেক ভালো অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। তবে এক্ষেত্রে নিজেকে বেশ পারদর্শী হতে হয়। টিউটরিং সেবা করার জন্য আপনাকে বেশ কিছু বিষয়ে দক্ষতা থাকতে হবে এবং অন্যদেরকে সে বিষয়ে পড়ানোর অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

* অন্যের পণ্য বিক্রি করে ইনকাম করার আইডিয়াটা খারাপ নয়। নিজের মূলধন না থাকলে অন্যের পণ্য বিক্রি করেও টাকা ইনকাম করা সম্ভব। এক্ষেত্রে আপনি একটি দোকান বা সব খুলতেও পারেন যেখানে অন্যের পণ্য বিক্রি করার মাধ্যমে আপনি প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

তাছাড়াও ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, মোবাইল মার্কেটিং, এছাড়া আপনার পছন্দের একটি ব্যবসায়িক মডেল বেছে নিয়ে আপনি নিজস্ব ব্যবসা শুরু করতে পারেন যার মাধ্যমে আপনি আপনার অবসর সময় কি কাজে লাগে ইনকাম করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয় করার উপায় সম্পর্কে জানুন 

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার অনেক উপায় রয়েছে এর জন্য প্রয়োজন একটি স্মার্ট ফোন আর ইন্টারনেট সংযোগ। তবে নিজের ইচ্ছাশক্তিকে অবশ্যই প্রাধান্য দিতে হবে। মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয় করার অনেক উপায় রয়েছে এর মধ্যে অন্যতম কিছু উপায় হল-

ইউটিউব ভিডিও তৈরি করেঃ
ভিডিও রেকর্ড থেকে শুরু করে ভিডিও এডিট আপলোড পর্যন্ত সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া মোবাইল ফোনে করা সম্ভব। তাই মোবাইল দিয়ে ভিডিও তৈরি করে ইউটিউবে আপলোড করে গুগল করা সম্ভব।

ফটো ভিডিও বিক্রি করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম-আপনার ফোনটি যদি ভালো ছবি ক্যান্সার করতে সক্ষম হয় এবং আপনার ফটোগ্রাফি সম্পর্কে ধারনা থাকে সেক্ষেত্রে মোবাইল দিয়ে তোলার ছবি বা ভিডিও বিক্রি করে ও টাকা ইনকাম করা সম্ভব। 

আর ফটোগ্রাফি যদি আপনার শখ হয় তাহলে শখে কাজে লাগিয়ে আপনি আপনার মোবাইল দিয়ে টাকা উপার্জন করতে পারেন। ছবি ও ভিডিও বিক্রির জন্য অসংখ্য ওয়েবসাইট রয়েছে এই ওয়েবসাইটগুলোর ওয়েবসাইট গুলোর মাধ্যমে সকল ধরনের ছবি কেনাবেচা হয়। 

যেমন শাটার স্টক, হোক, ড্রিম স্টাইম ইত্যাদি ওয়েবসাইট গুলোতে যোগাযোগ করলে আপনার তোলা ছবিগুলা বিক্রি করে আয় করতে পারেন।

* ফেসবুক ই-কমার্স দ্বারা মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করা সম্ভব। তবে ফেসবুক ব্যবহার করে বর্তমানে যেকোনো ধরনের অনলাইন ব্যবসা বা ই-কমার্স শুরু করা সম্ভব ঘরে বসেই। দেশে ফেসবুকের অসংখ্য ইউজার রয়েছে। ই-কমার্স ব্যবসার ক্ষেত্রে প্রত্যেক ব্যবহারকারী হয়ে উঠতে পারে আপনার কাস্টমার।

* রিসেলিং ব্যবসা করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম। এই ব্যবসায় তেমন ঝুঁকি নেই। ধরুন আপনি ৫০ টাকা দরে এক ডজন কলম কিনলেন এবং ৬৫ টাকা ধারে বিক্রি করলেন বাড়তি যে দামে বিক্রি করবেন সেটাই আপনার লাভ। 

এটাই হচ্ছে মূলত রিসেলিং ব্যবসার মডেল। আপনি অনলাইনে সব খুলে প্রোডাক্ট লিস্ট করতে পারেন। এরপর যখনই অর্ডার পাবেন তখন কম দামে পণ্য কিনে গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দিবেন স্টোর করে রাখার প্রয়োজন নেই।

* ইনস্টাগ্রাম থেকে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা সম্ভব। এটা শুধু একটি ফটো বা ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম নয় এর মাধ্যমে আয় করা ও সম্ভব একাধিক মাধ্যমে সাহায্যে আয় করা সম্ভব এই instagram থেকে। 

একটি আকর্ষণীয় প্রোফাইল তৈরি করুন, নিয়মিত নির্দিষ্ট বিষয়ে আগে পোস্ট করুন, ফলোয়ারদের সাথে এনগেজমেন্ট স্থাপন করুন থেকে টাকা আয় করতে দরকার একটি মোবাইল ও ইন্টারনেট সংযোগ।

* ফেসবুক মনিটাইজেশন করে পেজে পোস্ট করা ভিডিও থেকে আয় করা সম্ভব। এছাড়া আপনি ফেসবুক ইউটিউব এর জন্য একটি কন্টেন্ট তৈরি করে দুটি প্ল্যাটফর্ম আপলোড করতে পারেন সে ক্ষেত্রে সফলতা সম্ভাবনা বেশি থাকে।

* আপনি যদি নির্দিষ্ট কোন বিষয় পারদর্শী হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে উত্তর বিষয়ে অনলাইনে মোবাইলের মাধ্যমে অন্যদের পড়ানোর মাধ্যমে আয় করতে পারেন। 

অনলাইন টিউশনের পাশাপাশি বিভিন্ন কোর্স বানাতে পারেন যা বিক্রি করেও আয় করা সম্ভব এছাড়া আপনি যে বিষয়ে পারদর্শী সে বিষয় নিয়ে কনসালটেন্ট হিসেবে কাজ করে আয় করতে পারেন।

* ফ্রিল্যান্সিং করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করা সম্ভব। আপনি যদি মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা করতে চান সেক্ষেত্রে আপনার কোন একটি স্কিল অর্থাৎ দক্ষতা থাকা প্রয়োজন পড়বে। একাধিক কাজ করতে পারেন। যেমন কন্টেন্ট রাইটিং, ট্রান্সলেশন, ব্লক কমেন্টিং, ট্রান্সক্রিপশন ইত্যাদি।

* ব্লগিং করে মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার জন্য আপনাকে খুলে ফেলতে হবে একটি ব্লগ। আপনার ব্লগের google adsense approval নিতে পারলে শুরু হয়ে যাবে ইনকাম। ব্লগিং শুরু করতে হবে ওয়ার্ডপ্রেস, ব্লগার কিংবা অন্য কোন ব্লগিং ওয়েবসাইট ব্যবহার করে নিজের ব্লগিং সাইট সেটআপ করুন। 

এখানে কনটেন্ট পোস্ট করুন ব্লগে মানসম্মত কন্টেন্ট থাকলে google এডসেন্সের জন্য এপ্লাই করুন। গুগল এডসেন্স পেলেই হতে পারে আপনার ইনকামের শুরু।

* ডেলিভারি সার্ভিস এর মাধ্যমে মোবাইল দিয়ে ইনকাম অনেক সহজ। বাংলাদেশে অনলাইন শপিং মার্কেটপ্লেসের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির সাথে সাথে প্রয়োজন বাড়ছে ডেলিভারি সার্ভিস প্রদান করার জন্য লোকবলের। 

এজন্য প্রয়োজনে একটি সাইকেল বা বাইক এবং হাতের কাছের একটি স্মার্টফোন। ডেলিভারি সার্ভিসের কাজটি পার্ট টাইম ও ফুল টাইম হতে পারে।

* ড্রাইভিং করে টাকা উপার্জন করা সম্ভব। পাঠাও, উবারের মতো রাইট শেয়ারিং সার্ভিস গুলোতে কাজ করা যা পার্ট টাইম অথবা ফুল টাইম। সার্ভিস এর ড্রাইভিং করে মোবাইল দিয়ে ইনকাম করতে পারবেন।

কিভাবে মোবাইল দিয়ে বিকাশ থেকে ইনকাম করা যায় জানুন

বর্তমান সময়ে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বিকাশ অনেক জনপ্রিয়। বিকাশের মাধ্যমে আমরা খুব সহজে টাকা লেনদেন করতে পারি এবং বিকাশ ব্যবহার করে টাকা ইনকাম করা যায়। আপনি চাইলে আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে খুব সহজেই টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

এর জন্য আলাদা কোন দক্ষতা অর্জন করতে হবে না। শুধুমাত্র কয়েকটি পর্দা তাবলম্বন করে খুব সহজে বিকাশ থেকে ইনকাম করা সম্ভব।

* রিওয়ার্ড পয়েন্ট-বিকাশ কোম্পানি তাদের ব্যবহারকারীদের জন্য পুরস্কারের ব্যবস্থা রেখেছেন। আপনি আপনার বিকাশ একাউন্টে যত বেশি টাকা লেনদেন করবেন সেই অনুযায়ী আপনাকে বিভিন্ন ধরনের পুরস্কার দেওয়া হবে। পুরস্কারের কয়েকটি স্তর ভেদে প্রকারভেদে করা হয়েছে। 

সিলভার, ব্রোঞ্জ, টাইটেনিয়াম, হীরা, গোল্ড, প্লাটিনাম ইত্যাদি অপশন গুলা নির্ভর করে আপনার লেনদেনের উপর। আপনি যত বেশি টাকা ট্রানজেকশন করবেন আপনার একাউন্টে সে পরিমাণ টাকা পেয়ে যাবেন।

* গেম খেলে বিকাশে টাকা আয়-বিকাশ মোবাইল অ্যাপ থেকে আপনি বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে গেমস খেলে বিকাশ থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এজন্য প্রথমে আপনাকে বিকাশের অ্যাপ চালু করতে হবে। 

বিকাশ পিন নাম্বার প্রদান করে আপনার অ্যাকাউন্টটি লগইন করতে হবে। তারপরে মোর অপশনে প্রবেশ করে গেম খেলার জন্য গেমস লেখা অপশনে প্রবেশ করবেন সেখানে পেয়ে যাবেন বিকাশ বার্ড গেমস। 

গেম খেলে যদি আপনি বিজয়ী হন তবে আপনাকে বিভিন্ন পয়েন্ট প্রদান করা হবে। আপনি পরবর্তীতে টাকাতে রূপান্তর করে নিতে পারবেন।

* রেফার করে টাকা ইনকাম-মোবাইল ব্যাংকিং সেবাই নগদ এবং বিকাশের মধ্যে। বিকাশ তাদের গ্রাহক সংখ্যা বাড়ানোর জন্য রেফার অফার প্রদান করে। এতে করে কোন ব্যক্তি যদি বিকাশ মোবাইল অ্যাপস ইনস্টল করার লিংক তাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে তাহলে প্রতি রেফারের জন্য ৫০ টাকা করতে পারবে।

বিকাশ একাউন্ট খুলে টাকা ইনকাম- বিকাশ তাদের নতুন গ্রাহকদের জন্য বিশেষ অফার প্রস্তুত করেছে। বিভিন্ন ক্যাম্পেইন এর মাধ্যমে বিকাশ তাদের অ্যাকাউন্ট খোলার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। 

বিকাশ একাউন্ট খোলার পর আপনাকে বিকাশ একাউন্টে ৫০ টাকা প্রদান করা হবে তার পাশাপাশি প্রথম রিসার্চ করে আপনি ২০ টাকা ক্যাশব্যাক গ্রহণ করতে পারবেন এ ধরনের বিভিন্ন ধরনের অফার বিকাশ কোম্পানি আপনাকে দিয়ে থাকে।

* ক্যাশব্যাক থেকে টাকা ইনকাম-বিকাশ প্রতিদিন তাদের গ্রাহকদের আকর্ষণীয় কিছু ক্যাশব্যাক প্রদান করে থাকে। মোবাইল রিচার্জ এর মাধ্যমে এ অফার গুলো গ্রহণ করতে পারেন এর জন্য অবশ্যই আপনার বিকাশ এর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করা প্রয়োজন হবে। 

কারণ এই অ্যাপ ব্যবহার করলে আপনি বেশি বেশি ক্যাশব্যাক গ্রহণ করতে পারবেন। যেমন ২০ টাকা মোবাইল রিচার্জ এর মাধ্যমে ২১ টাকা ক্যাশব্যাক অফার চালু। এই ধরনের ক্যাশব্যাক থেকে টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম প্রতিদিন 1000 টাকা ঘরে বসে আয় করা যায় 

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার অনেক ধরনের প্লাটফর্ম রয়েছে। মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করার সেরা কয়েকটি পদ্ধতি সম্পর্কে নিম্নে বর্ণনা করা হলো:

সফটওয়্যার দিয়ে টাকা ইনকাম- বর্তমানে অনেক অ্যাপ বা সফটওয়্যার আছে যেগুলোতে কাজ করলে টাকা ইনকাম করা যায়। যেমন-ROZ Dhan App, Current Rewards, Poll Pay ইত্যাদি অ্যাপস গুলো ব্যবহার করে আপনি মোবাইলের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারেন। 

যে অ্যাপটি আপনার পছন্দ সেটি মোবাইল ফোনের ডাউনলোড করে নিতে হবে। তারপরে তাদের অ্যাপ অনুযায়ী আপনাকে কাজ করতে হবে।

ফেসবুক থেকে টাকা আয়-ফেসবুক গ্রুপ, ফেসবুক পেইজ, ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে আপনি মোবাইলে টা ইনকাম করতে পারবেন। উপরিউক্ত মাধ্যমে আপনার বেশি বেশি বন্ধু ইনভাইট করবেন সেখানে আপনার পর্যাপ্ত বন্ধু হয়ে গেলেও ওয়েবসাইটের লিংক ব্যবহার করে টাকা আয় করতে পারবেন।

অনলাইনের মাধ্যমে আয়-বর্তমানে ছাত্রদের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার মাধ্যম হলো বিভিন্ন ধরনের গেমস। সবার প্রিয় গেমস লুডু খেলা। 

আপনি যদি অনলাইনে মোবাইলে ইনকাম করেন তবে আপনার প্রয়োজনে একটি স্মার্টফোন যেটার মাধ্যমে লুডু খেলে আপনি পড়াশোনার পাশাপাশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

পরিশেষে

প্রিয় বন্ধুরা আপনি যদি এই আর্টিকেলটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই মোবাইলের মাধ্যমে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় ঘরে বসে সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পেয়েছেন এবং আমি আশা করি আপনারা অনেক উপকৃত হয়েছেন। 

এ ধরনের আর্টিকেল পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করতে থাকুন। সবশেষে আমি আপনার এবং আপনার পরিবারের সকলের সুস্বাস্থ্য কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করছি ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url