অ্যালোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক | Rahul IT BD

অ্যালোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক

প্রিয় পাঠক আপনি কি অ্যালোভেরার উপকারিতা অ্যালোভেরা খাওয়ার নিয়ম, ত্বক ও চুলের যত্নে এলোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে জানতে চান? তাহলে আপনি একদম সঠিক জায়গাতে ক্লিক করেছেন। কারণ এই পোস্টটিতে এই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য আলোকপাত করা হয়েছে।
অ্যালোভেরার উপকারিতা
তাই আপনি যদি অ্যালোভেরার পুষ্টিগুণ এবং উপকারিতা সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য আর সে জন্য আপনাকে অগ্রিম স্বাগতম জানাই। তাই আর দেরি না করে এই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে এই পোস্টটি এখনই পড়ুন। আশা করি আপনি উপকৃত হবেন।

ভূমিকাঃ অ্যালোভেরার উপকারিতা

প্রিয় বন্ধুরা আমরা শরীরের যত্নে বিভিন্ন ধরনের পদ্ধতি এপ্লাই করে থাকে প্রাকৃতিক, আর্টিফিশিয়াল অনেক ধরনের উপায় সম্পর্কে জানার চেষ্টা করি। তার মধ্যে অ্যালোভেরার বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জানার জন্য আপনারা ইন্টারনেটে সার্চ করে থাকেন। 

তাই আপনাদের এই দিক বিবেচনায় রেখে আজকের এই পোস্টটি খুবই আন্তরিকতার লেখা। কারণ কি এই সম্পর্কে এই পোস্টটিতে অনেক বেশি তথ্য নিয়ে আলোচনা হয়েছে। 

তাই আজকের এই পোস্টটি অনেক বেশি ইনফরমেটিভ হবে। তাই আপনি যদি এই বিষয় নিয়ে সমস্যায় থাকেন তাহলে সম্পূর্ণ এই পোস্টটি পড়লে তার সমাধান পাবেন ইনশাল্লাহ।

অ্যালোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক

অ্যালোভেরার অপর নাম ঘৃতকুমারী। অধিকাংশ মানুষের কাছেই এলোভেরা অনেক উপকারী ও ভেষজ উদ্ভিদ হিসেবে পরিচিত। প্রাচীন কাল থেকেই আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে এই উদ্ভিদটি। রাস্তাঘাটে কিংবা বাজারে খুবই সহজলভ্য এটি। 

এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, জিংক, আয়রন, পটাশিয়াম, ফলিক অ্যাসিড, অ্যামিনো এসিড, ভিটামিন-এ, বি-৬, বি-২ । 

এছাড়াও অ্যালোভেরাতে ২০ ধরনের খনিজ পদার্থ পাওয়া যায়। আর মানব দেহের জন্য যে বাইশ ধরনের এমন এসিড প্রয়োজন হয় তার আটটি অ্যালোভেরাতে পাওয়া যায়। তাই অ্যালোভেরার উপকারিতা বলে শেষ করা যাবে না। তাই নিচে এলোভেরা উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

১. ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে- যারা ডায়াবেটিসের সমস্যায় ভুগছেন তারা নিয়মিত এলোভেরা রস খেলে অনেক উপকার পাবেন। এতে রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ কমিয়ে আনে আর ইনসুলিন এর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে যার কারণে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। 

ডায়াবেটিসের পাশাপাশি মিলিটাস রোগের ও নিরাময় করে থাকে।

২. হার্টের সুস্থতায়- এলোভেরার রস হার্টকে সুস্থ ও সতেজ রাখতে সাহায্য করে। এলোভেরা শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দেয়, ব্লাড প্রেসার কে নিয়ন্ত্রণ করে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। রক্তের মধ্যে অক্সিজেন বহন করার ক্ষমতা অনেক বাড়িয়ে দেয়। 

আবার এই এলোভেরা দেহের দূষিত রক্ত বের করে রক্ত কণিকা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। যে কারণে দীর্ঘদিন আপনার হৃদপিণ্ড বা হৃদযন্ত্র সুস্থ থাকবে।

৩. লিভার ভালো রাখে- এলোভেরা সর্বদা আমাদের হাইড্রেট ও ফাইটোট্রিয়েন্ট সমৃদ্ধ করে লিভার কে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

৪. ওজন কমাতে- ওজন কমাতে অ্যালোভেরার জুস খুবই কার্যকরী। ক্রনিক প্রদাহের ফলে শরীরে মেয়ের জমে এলোভেরা জুসের মধ্যে এন্টি ইনফ্লামেন্টরি উপাদান থাকে যা এই প্রদাহ রোধ করে ওজন কমাতে সাহায্য করে। কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই এ কাজটি এলোভেরা করে থাকে।

৫. হজম শক্তি বাড়ায়- পরিপাক যন্ত্র কে পরিষ্কার করে হতম শক্তি বাড়াতে গৃহীত কুমার অত্যন্ত কার্যকর। ঘৃতকুমারীর রস  কোষ্ঠকাঠিন্য ও ডায়রিয়া দুই ক্ষেত্রেই কার্যকর। 

পরিপাক ও রেচন যন্ত্র কে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া থেকে মুক্ত রাখে ফলে এর রস খেলে কৃমির হওয়ার আশঙ্কা থাকে না কিংবা কৃমি থাকলেও সেটা দূর হয়ে যায়।

৬. ত্বকের যত্নে- প্রাচীনকাল থেকে ত্বকের যত্নে এলোভেরা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ত্বকে চুলকানি, রোদে পড়া দাগ দূর করতে, ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে অ্যালোভেরার গুণাগুণ অতুলনীয়। যেকোনো উপটান, প্যাক অথবা সরাসরি এর জেল ত্বকে লাগালে ত্বক হবে উজ্জ্বল, মসৃণ এবং বয়সের ছাপ মুছে যাবে।

৭. চুলের যত্নে- চুলের রুক্ষতা দূর করার জন্য, চুলকে সিল্কি করার জন্য অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করা হয়। এর অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল এবং এন্টিফাঙ্গাল উপাদান চুল পড়া ও খুশকির সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এলোভেরা রসের সঙ্গে আমলকি রস মিশিয়ে চুলে লাগালে চুলের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়।

৮. দাঁতের সমস্যায়- অ্যালোভেরার জুস দাঁত এবং মাড়ির ব্যথার জন্য খুবই উপকারী। দাঁতে কোন ইনফেকশন থাকলে এলোভেরার জুস ব্যবহার করলে বা নিয়মিত অ্যালোভেরা জুস যদি খাওয়া যায় তাহলে দাঁতের ক্ষয় অনেক অংশ কমে যায়।

৯. মুখের দুর্গন্ধ দূরীকরণে- এলোভেরার মধ্যে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন-সি যা মুখের জীবাণু দূর করে, মাড়ি ফোলা ও মাড়ি থেকে রক্ত পড়া বন্ধ করে। এলোভেরা জেল মাউথ ওয়াশের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

১০. রোগ -প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে- অ্যালোভেরাতে রয়েছে এন্টি মাইক্রোবিয়াল এবং এন্টিফাঙ্গাল উপাদান তাই এর জুস নিয়মিত পান করলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং দেহের টক্সিন উপাদান দূর করে শরীরকে সুস্থ রাখতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে থাকে।

১১. মাংসপেশী ও জয়েন্টের ব্যথা দূর করে- এলোভেরা দেহের মাংসপেশী ও জয়েন্টের ব্যথা দূর করতে খুবই কার্যকরী ভূমিকা রাখে। দেহের যে স্থানে ব্যথা সেই স্থানে এলোভেরার ক্রিম লাগানো গেলে ব্যথা নিমিষে কমে যায়।

১২. মুখের ঘা প্রতিরোধে- এলোভেরাতে রয়েছে ভিটামিন-বি। আর ভিটামিন বি এর অভাবে অনেকের মুখে ঘা হয় যে কারণে মুখের ঘা প্রতিরোধ করতে এলোভেরা অত্যন্ত কার্যকরী। যদি ঘায়ের জায়গায় অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে দেয়া হয় তাহলে মুখের ঘা ভালো হয়।

১৩. কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে- প্রতিদিন সকাল এবং রাত্রে এক চামচ এলোভেরা রস এক গ্লাস কুসুম গরম পানির সাথে মিশিয়ে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এলোভেরাতে রয়েছেন অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ফাইবার গতি স্বাভাবিক করে এবং পাকস্থলীকে ঠান্ডা রাখে।

অ্যালোভেরা খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জেনে নিন

অ্যালোভেরা নান পুষ্টিগুণে ভরপুর একটি ভেষজ উদ্ভিদ। এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম, আয়রন, জিংক, অ্যামিনো এসিড, ফলিক এসিড, ভিটামিন-ি৬,-ভিটামিন বি-২। 

নানা পুষ্টিগুনে ভরপুর থাকার কারণে সব বয়সের মানুষ খেতে পারে এতে সমস্যা নেই তবে পরিমাণ মতো খেলে বেশি উপকার পাওয়া যাবে। অ্যালোভেরা খাওয়ার কিছু নিয়ম রয়েছে। নিয়ম মেনে এটি খেলে এর উপকার পাওয়া সম্ভব।

* অ্যালোভেরা 2 চামচ, এক চামচ লেবু, একগ্লাস পানি, একটু লবণ একটি গোলমরিচ কিংবা এর গুঁড়ো ও প্রয়োজনমতো বরফ কুঁচি ভালোভাবে মিক্সড করে খেতে হবে। তাহলে এটা খেতে যেমন খারাপ লাগবে না তেমনি এটা শরীর চাঙ্গা করতে সাহায্য করবে।

* এলোভেরার একটি পাতার রসের সাথে দুই চামচ মধু, পরিমান মত লবণ ও এক গ্লাস পানি ও সাথে কয়েক কুঁচি বড় একসাথে ব্লেন্ডার করে খেতে পারেন।

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক গ্লাস কুসুম গরম পানির সাথে দুই চামচ এলোভেরা মিশিয়ে খেতে পারলে এর উপকার সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায়। অ্যালোভেরার জুস বাজারে কিনতে পাওয়া গেলেও বাড়িতে বানিয়ে খেতে পারলে সেটা বেশি স্বাস্থ্যকর হবে। 

তবে যাদের অ্যালার্জি সমস্যা রয়েছে এবং গর্ভবতী ও বেশি বয়স্ক মহিলাদের না খাওয়াই ভালো।

ত্বক ও চুলের যত্নে এলোভেরার উপকারিতা জেনে নিন

অ্যালোভেরা এমন একটি ভেষজ উদ্ভিদ যেটা ত্বক ও চুলের যত্নে ব্যবহার করা হয়। আজকের আলোচনার বিষয় ত্বকের চুলের যত্নে এলোভেরার উপকারিতা।

ত্বকের যত্নে এলোভেরা-

# বাইরে থেকে এসে মুখ ঠান্ডা পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিন। তারপরে মেসেজ ক্রিম দিয়ে হালকা করে মেসেজ করুন। এবার স্ক্রাব দিয়ে ত্বকের উপর জমে থাকা মরা কোষ ও ময়লা পরিষ্কার করে মুখ ভালো করে মুছে এলোভেরা প্যাক লাগান। নিমিষেই স্নিগ্ধতা ফিরে আসবে ত্বকে।

# অ্যালোভেরা মেছতা দূর করে। আঙ্গুলের ডগা খানিকটা জেল নিয়ে দাগের উপর ধীরে ধীরে মেসেজ করুন। সারারাত লাগে রেখে পরদিন সকালে ধুয়ে ফেলুন। 

এভাবে কয়েক সপ্তাহ লাগালে মেস্তার দাগ কমে যাবে। এছাড়া এলোভেরা, মধু ও শশা একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট করে মুখে লাগালে মেছতা দূর হওয়ার পাশাপাশি ত্বকে ফিরে আসে সজীবতা।

# মুখের ত্বকে প্রতিদিন দুইবার এলোভেরা লাগালে কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। গোলাপজল ও অ্যালোভেরা একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগালে ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

# ত্বকের বলি রেখা দূর করার জন্য এলোভেরা রস উপকারী। নিয়মিত রাতে ঘুমানোর আগে এলোভেরা মুখে লাগিয়ে রেখে দিয়ে সকালে ধুয়ে ফেললে ত্বকে বলিরেখা দূর হবে।

# ঘামের কারণে টক তেল চিটচিটে হয় ফলে ব্রণের সমস্যা দেখা দেয় দিনে দুইবার মুখে অ্যালোভেরা লাগালে ব্রণের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

# শুষ্ক ত্বকে খুব সহজে রক্ষতার ছাপ পড়ে এ ধরনের ত্বকের যত্নে নিয়মিত এলোভেরা জেল লাগালে ত্বক হবে মসৃণ, কোমল, ও উজ্জ্বল।

# স্ক্রাব হিসাবে এলোভেরা ব্যবহার করতে পারেন। বিশেষ করে শুষ্ক ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা খুবই কার্যকর এটি ত্বকে মেখে হালকা করে ঘষে স্ক্রাব করে নিতে পারেন। এতে ত্বকের মরা কোষ উঠে ত্বক হবে কোমল মসৃণ।

চুলের যত্নে অ্যালোভেরা

# চুলের যত্নে এলোভেরার গুরুত্ব অপরিসীম। চুল পড়া বন্ধ করতে চাইলে সপ্তাহে একদিন অন্তত অ্যালোভেরা জেল চুলে লাগিয়ে নিন।

# চুলের যত্নে অ্যালোভেরা শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। কিছু মাইল্ড বা হারবাল শ্যাম্পু এলোভেরা সমৃদ্ধ থাকে চাইলে সাধারণ শ্যাম্পুতে খানিকটা এলোভেরা জেল মিশিয়ে হারবাল শ্যাম্পু বানিয়ে নিতে পারেন।

# চুল পরিষ্কার ও মসৃণ করতে অ্যালোভেরার হেয়ার প্যাক ব্যবহার করা যায়। তিন চামচ এলোভেরা জেল এর সাথে এক চামচ নারিকেল তেল ও এক চামচ লেবুর রস মিক্সড করে চুলে ভালোভাবে মেসেজ করতে হবে এতে চুল সতেজ থাকবে এবং চুলের রূক্ষতা কমে আসবে।

# অলিভ অয়েল তেল ও নারিকেল তেলের সঙ্গে অ্যালোভেরা তেল মিশিয়ে চুলে লাগালে চুল নরম ও মসৃণ হবে।

# অ্যালোভেরা জেল নিয়মিত চুলে লাগালে চুলের গোড়া মজবুত হবে, চুলের রক্ষতা দূর হবে এবং খুশকি দূর হবে

আ্যলোভেরা জেল তৈরি করবেন যে প্রক্রিয়ায় জেনে নিন

ত্বকের যত্ন নেওয়া অত্যন্ত জরুরি। তাই এই যত্ন নেওয়ার জন্য ক্রিম ব্যবহারের সঙ্গে এলোভেরা জেল ব্যবহার করে নিতে পারেন। তবে আপনি বাজারজাত অ্যালোভেরা জেল না কিনেও ঘরোয়া পদ্ধতিতে কিভাবে এলোভেরা জেল তৈরি করবেন জেনে নিন তার কয়েকটি উপায়।

১. বাড়িতে এলোভেরা গাছ থেকে জেলির মত অংশটুকু বার করে তাতে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে স্টোর করে রাখুন। এটি ৭ দিন পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন।

২. অ্যালোভেরার পাতা থেকে নরম অংশটুকু বের করে এক বা দুই চামচ মধু মিশিয়ে আইস স্ট্রে-তে সংরক্ষণ করে ব্যবহার করতে পারেন। এটি এক মাসের মত সংরক্ষণ করা যাবে।

৩. অ্যালোভেরার দুই থেকে তিনটি পাতা নিয়ে ভালোভাবে পরিস্কার করে শুধু ভেতরের জেলটুকু নিয়ে এর সাথে ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এখন এই জেল একটি কাছের বোতলে করে ফ্রিজে রাখতে হবে আপনি অনায়াসে জেলা একমাস অবধি ব্যবহার করতে পারবেন।

৪. এছাড়াও ভিটামিন সি ক্যাপসুল বা লেবুর রস অ্যালোভেরা রসের সাথে ভালোভাবে মিক্সড করে একসাথে দুই মাস ফ্রিতে সংরক্ষণ করা যাবে।

অ্যালোভেরা জেল ব্যাবহার করার নিয়ম জানুন

ত্বকের যত্নে, চুলের যত্নে এবং স্বাস্থ্যের বিষয়ে এলোভেরার উপকারিতা অতুলনীয়। কিছু নিয়ম মেনে এলোভেরা রস খেলে, চুলে বা ত্বকে ব্যবহার করলে আরো বেশি উপকৃত হওয়া যায়। এখন আলোচনা করব অ্যালোভেরা জেল ব্যবহারের নিয়ম-

* অ্যালোভেরার সাথে একটু মধু, হলুদ ও গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট করে ত্বকে 20 মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন এটি ব্রণের সমস্যা কমিয়ে ফেলে।

* টক দইয়ের সঙ্গে এলোভেরা মিক্স করে ফেস মাস্ক তৈরি করতে পারেন আবার লাগাতে পারেন। এতে ত্বক যেমন হবে নরম, কোমল ও মসৃণ তেমনি চুলো এর সজীবতা পাবে।

* অ্যালোভেরা জেল এর সঙ্গে কয়েকফোঁটা লেবুর রস মিক্সড করে ত্বকে লাগান এটি রোদে পোড়া ভাব দূর করবে।

*যদি আপনার হাত সামান্য পুড়ে যায় তাহলে আপনি প্রতিদিন তিনবার সেই জায়গায় এলোভেরা জেল লাগাতে পারেন। এটি পড়া জায়গা কে ঠান্ডা রাখবে এবং দ্রুত নিরাময়ের সাহায্য করবে।

* ঠোঁটের রং উজ্জ্বল রাখতে, ঠোট নরম আর মুসলিম করতে অ্যালোভেরা ব্যবহার করা হয়। নিয়মিত এলোভেরা জেল ঠোঁটে লাগালেই ঠোঁট উজ্জ্বল হবে। 

এক টেবিল চামচ চালের গুড়া আর অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে আস্তে আস্তে এই মিশ্রণ ঠোটে লাগিয়ে পাঁচ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। দেখুন ঠোঁট কত উজ্জ্বল, মসৃণ এবং কোমল হয়ে উঠে।

পুরুষদের জন্য অ্যালোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন

অ্যালোভেরা এমন একটি ভেষজ উদ্ভিদ যেটা মেয়েদের জন্য যেমন উপকারী তেমনি পুরুষদের জন্য উপকারী। সারাদিন কর্মব্যস্ততার কারণে পুরুষদের বাহিরে থাকতে হয় যে কারণে তাদের চুল রুক্ষ হয়ে পড়ে সঙ্গে ত্বকের উজ্জ্বলতা ও সজীবতা হারিয়ে যায়।

পুরুষরা চাইলে তাদের ত্বক ও চুলের যত্নে এলোভেরা ব্যবহার করতে পারেন এতে তাদের চুল ও ত্বক প্রাণবন্ততা ফিরে পাবে সাথে ত্বক ও চুল হবে কোমল, মসৃণ। পুরুষদের স্বাস্থ্যের জন্য অ্যালোভেরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ্ । বয়স বাড়ার সাথে সাথে তাদের শারীরিক শক্তি কমতে থাকে। 

আবার যৌন ইচ্ছা ও কমতে থাকে অনেক পুরুষ অক্ষম হয়ে পড়ে যৌন মিলনে।

তাই প্রতিদিনের খাবারের ডায়েটে এলোভেরা জুস রাখতে পারলে এটি আপনার যৌনজীবনকে সক্ষম করে তুলবে। এটি শুধু পুরুষদের ক্ষেত্রে নয় বরং নারীদের ক্ষেত্রেও হতে পারে। 

অ্যালোভেরা জ্বলন প্রশমিত করার জন্য বেশ পরিচিত। আপনি যদি নিজের মুখ শেভ করেন তবে আপনি জেলটি after save হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।


ব্রণ, ক্ষত, একজিমা সোরিয়াসিসের চিকিৎসার জন্য এলোভেরা জেল এবং ক্রিম পুরুষরা তাদের ত্বকে প্রতিদিন প্রয়োগ করতে পারেন।

এলোভেরা ছেলেদের হারপিস সিম্প্লেক্স ভাইরাস থেকে যৌনাঙ্গে ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করতে পারে। এলোভেরা শুক্রানুর গুণগতমান উন্নত করতে পারে।

পরিশেষে

প্রিয় বন্ধুরা আপনারা যারা এই আর্টিকেলটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়েছেন আমি আশা করি আপনারা অ্যালোভেরা উপকারিতা এবং মানব শরীরে এর কার্যকারিতা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য পেয়েছেন পাশাপাশি উপকৃত হয়েছেন।

এ ধরনের আর্টিকেল পেতে আমাদের ওয়েব সাইটে নিয়োজিত ভিজিট করতে থাকুন। আবার দেখা হবে এ ধরনের কোনো আর্টিকেলে সে পর্যন্ত আমাদের সাথেই থাকুন। সবশেষে আমি আপনার এবং আপনার পরিবারের সকলের সুস্থতা কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করছি ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url